ইতিহাস গড়লেন ‘পকেট রকেট’

২০১২ লন্ডন অলিম্পিক

উৎপল শুভ্র

২১ জুলাই ২০২১

ইতিহাস গড়লেন ‘পকেট রকেট’

উচ্চতা মেরেকেটে পাঁচ ফুট, চেহারাতেও কৈশোরের ছাপ বজায় ছিল ২৫ বছর বয়সে। এই শরীর নিয়েই ট্র‍্যাকে অপ্রতিরোধ্য হয়ে যেতেন বলে জ্যামাইকানরা তাঁকে ডাকত \`পকেট রকেট\`। ১০০ মিটারের সোনা জিতেছিলেন বেইজিংয়ে, সোনা ধরে রেখেছিলেন লন্ডনেও। ১০০ মিটারের সোনা ধরে রাখার কীর্তি তাঁর আগে দেখিয়েছিলেন মাত্র দুজন।

প্রথম প্রকাশ: ৬ আগস্ট ২০১২। প্রথম আলো

জ্যামাইকানরা আদর করে ডাকে ‘দ্য পকেট রকেট’। 

‘রকেট’ তো বটেই। নইলে এমন ইতিহাস গড়তে পারেন! এত দিন অলিম্পিক ইতিহাসে একটা কীর্তি ছিল শুধুই দুজন মেয়ের। গত পরশু যুক্তরাষ্ট্রের ওমিয়া টিয়াস (১৯৬৪ ও ৬৮) ও গেইল ডেভার্সের (১৯৯২ ও ৯৬) সঙ্গী হয়ে গেলেন শেলি-অ্যান ফ্রেজার-প্রাইস। ১০০ মিটারের সোনা ধরে রেখে।

বেইজিংয়েও জিতেছিলেন, লন্ডনেও জিতলেন। মাঝের চার বছরে অবশ্য দু-একটা জিনিস বদলেছে। জ্যাসন প্রাইসের সঙ্গে বিয়ের পর আরও লম্বা হয়েছে নামটা। ওজন বেড়েছে ৫ কেজি। তা বেড়েও মাত্র ৫৭ কেজি। উচ্চতা ৫ ফুট। বয়স ২৫, কিন্তু দেখলে তা বোঝার উপায় নেই। টেলিভিশনে দেখে আপনার কী মনে হয়েছে জানি না, তবে সামনাসামনি দেখলে মনে হয়, ছোট্ট একটা মেয়ে, এখনো বোধহয় কৈশোরই পেরোয়নি। না, ‘পকেট রকেট’ নামটা বড় ভালো হয়েছে।

কথাবার্তা-ছটফটে ভাবভঙ্গিতেও যেন কিশোরী। এত বড় অ্যাথলেট, অথচ কোনো ভাবটাব নেই। পরশু সংবাদ সম্মেলন শেষে মঞ্চ থেকে নেমে মিশে গেলেন সাংবাদিকদের মধ্যে। এক জ্যামাইকান সাংবাদিককে জড়িয়ে ধরলেন। বাংলাদেশের এক সাংবাদিক ছবি তুলতে চাইলে তাঁর কাঁধে হাত রেখে দাঁড়িয়ে গেলেন হাসিমুখে। 

ছবি: গেটি ইমেজেস

সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নোত্তর পর্ব শুরু হওয়ার আগে অ্যাথলেটরা নিজে থেকে কিছু বলেন। শেলি অ্যান-ফ্রেজার-প্রাইস সেখানেও বেশি বললেন অন্যদের নিয়ে। শুভেচ্ছা জানালেন ফাইনালে ওঠা বাকি আটজনকে, ‘সবাই শুধু জেতার কথা বলে। কিন্তু অলিম্পিকের ফাইনালে ওঠাই কি সহজ নাকি! আমি ফাইনালের সবাইকেই অভিনন্দন জানাতে চাই।’

সারল্যটা আরও বেশি প্রকাশ পেল, যখন সংবাদ সম্মেলনের সঞ্চালক তাঁকে অভিনন্দন জানাতে গেইল ডেভার্স শেলির নাম্বার খুঁজছেন জানানোর পর শেলি হাসতে হাসতে বললেন, ডেভার্সকে তিনি চেনেনই না! ‘ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডের ইতিহাস সম্পর্কে আমি খুব বেশি জানি না। ডেভার্স কেমন দেখতে, লম্বা না খাটো—কিছুই জানি না। তবে অভিনন্দন জানিয়েছেন বলে তাঁকে ধন্যবাদ।’

বেইজিংয়ে মেয়েদের ১০০ মিটারের সোনা-রুপা-ব্রোঞ্জ তিনটিই ছিল জ্যামাইকার। এবার দুই জ্যামাইকান শেলি ও ভেরোনিকার মাঝখানে ঢুকে গেছেন যুক্তরাষ্ট্রের কারমেলিটা জেটার। সোনা আর রুপার ব্যবধানও খুব সামান্য—সেকেন্ডের ৩ শতাংশ। অলিম্পিক ইতিহাসে এই প্রথম ছয়জন মেয়ে ১১ সেকেন্ডের কমে দৌড় শেষ করেছেন। স্প্রিন্টে অনেক দিন ধরেই জ্যামাইকার জয়জয়কার। এই অলিম্পিকে সেই জয়যাত্রা তাঁর মাধ্যমে শুরু হলো বলে একটু বেশি খুশি শেলি, ‘বেইজিংয়ে জ্যামাইকার প্রথম সোনা জিতেছিল উসাইন বোল্ট। আমি খুশি, এবার শুরুটা করল একটা মেয়ে।’

তাতেও কি বোল্টের দীর্ঘ ছায়া থেকে বেরোতে পারবেন শেলি অ্যান-ফ্রেজার? তা যে সম্ভব নয়, শেলি তা জানেন। জ্যামাইকাতে বোল্টের তুলনায় তিনি কতটা বিখ্যাত, এই প্রশ্নে তাই হাসিতে ভেঙে পড়েন, ‘উসাইন উসাইনই। আমি জ্যামাইকাতে সুপার মার্কেটে যাই, লোকে বলে, তুমি উসাইনকে চেনো? কারও বাড়িতে যাই, এই, তুমি উসাইনকে চেনো? তোমরা কি একসঙ্গে ট্রেনিং করো? আমি এতে একটুও মাইন্ড করি না। উসাইন যা করেছে, তাতে এটা ওর প্রাপ্য। আমি এমনিতেও লাইমলাইট খুব পছন্দ করি না। যতটুকু পাই, তাতেই খুশি।’

ছবি: গেটি ইমেজেস

বেইজিংয়ে বোল্টের আলোতে অদৃশ্য হয়ে গিয়েছিলেন। এখানে তাঁর কীর্তিটা আগে বলে তা-ও একটু বাড়তি মনোযোগ পাচ্ছেন। বেইজিংয়ের সঙ্গে সবচেয়ে পার্থক্য অবশ্য অন্যখানে, ‘বেইজিংয়ে আমার বয়স ছিল মাত্র ২১, একেবারেই অনভিজ্ঞ। কেউই বিশ্বাস করেনি আমি সোনা জিতব, আমিও করিনি। সেখানে সোনা জয়টা তাই সব সময়ই আলাদা হয়ে থাকবে। এবার আমার কাছে সবার প্রত্যাশা ছিল, তা ছাড়া গত দুই বছর সময়টাও খুব ভালো যায়নি।’

ভালো তো যায়ইনি, একটা কালো দাগও লেগেছিল গায়ে। ২০১০ সালে ডোপ টেস্টে ধরা পড়ে নিষিদ্ধ ছিলেন ছয় মাস। দাঁতের ব্যথার জন্য কী একটা ওষুধ খেয়েছিলেন, তাতেই ওই বিপত্তি। ডোপপাপীরা সবাই এমন কোনো না-কোনো অজুহাতই দেয়। তবে শেলির ঘটনা সত্যি ছিল বলেই শাস্তিটা বেশি হয়নি। কিন্তু মানসিক ঝড় তো একটা গেছেই।

সেটির রেশ পড়েছিল ট্র্যাকেও। বেইজিংয়ে সোনা জেতার পর জিতেছিলেন ২০০৯ বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপেও। ১০০ মিটারে আমি অলিম্পিক ও বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন—শেলি অ্যান-ফ্রেজারের আগে আর কোনো মেয়ে তা বলতে পারেননি। অথচ গত বছর বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে হলেন চতুর্থ। এখানে ১০০ মিটার জিতেই সেই দুঃখ ভুলে যাননি। ২০০ মিটার বাকি, রিলেও আছে এরপর। আনন্দ-টানন্দ যা করার করবেন এই দুটিও জেতার পর। বলেই তো দিলেন, ‘আমার কাজ এখনো শেষ হয়নি।’

শেয়ার করুনঃ
আপনার মন্তব্য
আরও পড়ুন
Add
Ispahani Mirzapore Tea
×