উৎপল শুভ্র: নির্বাচকমণ্ডলীর চেয়ারম্যান হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পুরনো গৌরবের দিনগুলোতে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব এখন আপনার ওপর। দায়িত্বটা কি উপভোগ করছেন?

ভিভ রিচার্ডস: উপভোগ শব্দটা একদমই ব্যবহার করা যাচ্ছে না এখানে। নির্বাচকমণ্ডলীর চেয়ারম্যান হলে আর যা-ই হোক, উপভোগ করা যায় না। যে দলকে আপনি খুব ভালোবাসেন, যে দল আপনার জীবনের একটা অংশ হয়ে আছে, সে দলের নির্বাচক হওয়াটা এমনিতেই কঠিন। তার ওপর গত কিছুদিন ওয়েস্ট ইন্ডিজ যেমন খেলছে, প্রায়ই যেভাবে হারছে, তা দেখাটা খুব কষ্টকর।

শুভ্র: পরাজয়ের সঙ্গে তো খুব একটা পরিচয় ছিল না আপনার। সর্বজয়ী এক দলের সদস্য ছিলেন, পরে অধিনায়ক হিসেবেও তো কখনো সিরিজ হারার অভিজ্ঞতা হয়নি। এখন ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সিরিজের পর সিরিজ হারতে দেখে হতাশা গ্রাস করে না?

রিচার্ডস: যেকোনো নির্বাচক কমিটির চেয়ারম্যানের জন্যই হতাশা এক অনিবার্য অনুষঙ্গ। হতাশা তো থাকবেই, তবে তাতে হতোদ্যম হয়ে না পড়াটাই হলো জরুরি। এই হতাশা থেকে মুক্তি পেতে একটাই আশা করতে পারেন আপনি, যাদের ওপর আস্তা ও বিশ্বাস রেখে দলে নিয়েছেন, তারা এর প্রতিদান দেবে। তা পেলেই হতাশাটা একটু কমে। 

শুভ্র: চ্যালেঞ্জ নিয়ে তাতে জয়ী, ব্যাটসম্যান ভিভ রিচার্ডসকে এভাবেই চেনে সবাই। ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটের এই পরিস্থিতিতে নির্বাচক কমিটির দায়িত্ব নেওয়ার সময় আপনি কি একটু দ্বিধান্বিত ছিলেন, নাকি এটিকেও নিয়েছেন আর একটি চ্যালেঞ্জ হিসেবেই?

রিচার্ডস: না, দ্বিধান্বিত ছিলাম না। বরং এটি ছিল একটি চ্যালেঞ্জ, এখনো তা চ্যালেঞ্জ, ভবিষ্যতেও তা-ই থাকবে। সমস্যা একটাই, মানুষ মনে করে ভিভ রিচার্ডস যখন দায়িত্ব নিয়েছে, তখন রাতারাতি সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। কিন্তু নিজে খেলার সঙ্গে এর অনেক পার্থক্য। যখন নিজে খেলতাম, তখন কাজটা ছিল অনেক সহজ। আমার হাতে ব্যাট থাকত, জানতাম কী করতে হবে, তা-ই করার চেষ্টা করতাম, করেও ফেলতাম। এখন মাঠের বাইরে বসে দেখা ছাড়া আমার কিছুই করার নেই। তা দেখার সময় মাঝে মধ্যে অসহায়ও লাগে, কিন্তু আমি আগেই বলেছি এটা একটা চ্যালেঞ্জ এবং আমি আমার দেশকে কিছু দিতে চাই। এটাকে তাই আমি সুযোগ হিসেবেই দেখছি। বাকি সবকিছু যদি ঠিকভাবে চলে, তাহলে আমি সফল হব বলে আশাবাদী। 

শুভ্র: একটা ব্যাপারে সবারই কৌতূহল। যে ওয়েস্ট ইন্ডিজ টানা ১৫ বছর বিশ্ব ক্রিকেটে রাজত্ব করল, সেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ হঠাৎ করেই এমন তলানিতে চলে গেল কীভাবে?

রিচার্ডস: কোনো নির্দিষ্ট একটি বিষয়ের কথা বলা যাবে না, সবকিছু মিলিয়েই এমন হয়েছে। একজন কারো ওপর এই দায় চাপিয়ে দিলেও হবে না, দায় নিতে হবে আমাদের সবাইকেই। এই মুহূর্তে এটাই সবচেয়ে জরুরি। আকাশ থেকে এত দ্রুত কীভাবে আমরা মাটিতে নেমে এলাম, এক কথায় তা বোঝানো খুব কঠিন। এটি বিশাল একটি সংশয়-বলয়ের মতো। সেই সংশয়গুলোর উত্তর খুঁজে বের করাটাই আমাদের জন্য জরুরি। কোনো একজনের পক্ষে তা সম্ভব নয়। সবাই মিলেই কাজটা করতে হবে আমাদের। এ কারণেই আমি যখন কথা বলি, ‘আমি’ না বলে বলি ‘আমরা’। ‘আমি’র বদলে ‘আমরা’ হলে অনেক সমস্যার সমাধানই সহজ হয়ে যায়।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্বর্ণযুগের কয়েকজন সতীর্থদের সঙ্গে। বাঁ থেকে: কলিন ক্রফট, গর্ডন গ্রিনিজ, জোয়েল গার্নার, ভিভ রিচার্ডস, ক্লাইভ লয়েড ও অ্যান্ডি রবার্টস। ছবি: লর্ডস ট্যাভার্নস্

শুভ্র: ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটের অধোগতির জন্য অনেকেই বাস্কেটবল আর বেসবলের প্রতি তরুণ প্রজন্মের আকর্ষণকে দায়ী করেন। আপনি কি একমত?

রিচার্ডস: এটা একদমই ফালতু কথা। আমাদের সময়েও মাইকেল জর্ডান, ম্যাজিক জনসনের মতো অনেক বড় বড় বাস্কেটবল খেলোয়াড় ছিল। তখনো বাস্কেটবল ছিল বড় একটা আকর্ষণ। আমি সবসময়ই বিশ্বাস করে এসেছি, কিশোর-তরুণেরা সব ধরনের খেলাই খেলবে। কারণ পৃথিবীতে খেলাধুলার চেয়ে স্বাস্থ্যসম্মত ও ভালো জিনিস আর নেই। আমাদের যা করতে হবে, তা হলো ক্রিকেটের জন্য আরো অনুকূল পরিবেশ তৈরি করতে হবে। সবাই মিলেই তা করতে হবে। এখন যেমন আমাদের সবাইকে মিলে ২০০৭ বিশ্বকাপকে সবচেয়ে সফল বিশ্বকাপে পরিণত করার কাজে নামতে হবে। কিন্তু সমস্যা হলো, অনেক ব্যবসায়ী এরই মধ্যে হিসাব করতে শুরু করেছেন, ২০০৭ সালের বিশ্বকাপে কত টাকা কামাতে পারবেন। অনেকের ভাব দেখলে মনে হয়, ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাদের জন্যই বিশ্বকাপ আয়োজনের সুযোগ পেয়েছে। কিন্তু আসলে তা নয়। একসময় ওয়েস্ট ইন্ডিজ বিশ্বের সেরা দল ছিল, বিশ্বকাপ পেয়েছে এ জন্য। ওয়েস্ট ইন্ডিজ বিশ্বকাপ পেয়েছে থ্রি ডব্লিউস্, গ্যারি সোবার্স, ক্লাইভ লয়েডদের জন্য। এটা কোনো ব্যবসায়ীর ব্যবসায়িক দক্ষতার কারণে পায়নি। এখন আমরা বিশ্বকাপ এনে দেওয়ার পর সেই ব্যবসায়িক দক্ষতা দেখানোর একটা সুযোগ পেয়েছে তারা। এখন তা দেখতে চাই। ২০০৭ বিশ্বকাপ থেকে কত টাকা কামানো যাবে, এই চিন্তার চেয়েও একটা ব্যাপার নিশ্চিত করা বেশি জরুরি, তা হলো সেই বিশ্বকাপে যাতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের শক্তিশালী একটি দল থাকে। সেই লক্ষ্যে এখন থেকেই কাজ করতে হবে আমাদের।

শুভ্র: ওয়েস্ট ইন্ডিজে আসার পর দ্বীপে দ্বীপে তীব্র রেষারেষির সঙ্গে আরও ভালোমতো পরিচয় হচ্ছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলেও অনেকে এর ছাপ দেখতে পান। আপনাদের সময়ে ব্যাপারটা এরকম ছিল না বলেই জানি। এটাকেও কি ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটের অধোগতির একটা কারণ বলবেন?

রিচার্ডস: এটাকে আমি খুব বড় ব্যাপার বলে মনে করি না। কিছু লোকের মধ্যে এ রকম আত্মকেন্দ্রিক চিন্তাভাবনা সব সময়ই ছিল। আপনি এখানকার বিভিন্ন দ্বীপের রেডিও প্রোগ্রাম শুনুন, দেখবেন সবাই ভাবছে, ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল শুধু ওই দ্বীপের খেলোয়াড়দের নিয়েই হওয়া উচিত। তবে আমি এটিকে বিচ্ছিন্ন ব্যাপার হিসেবেই দেখতে চাই। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বেশির ভাগ লোকই সেভাবে ভাবে না। হ্যাঁ, অন্যরকম কিছু লোকও আছে, আপনাদের হয়তো তাদের সঙ্গেই পরিচয় হয়েছে। 

 'লারা এক জিনিয়াস এবং জিনিয়াসরা সব সময় আসে না।' ব্রায়ান লারাকে নিয়ে উচ্ছ্বাস এবং আক্ষেপ দুটিই ছিল ভিভ রিচার্ডসের। ছবি: গেটি ইমেজেস

শুভ্র: ব্রায়ান লারা প্রসঙ্গে আসি। তাঁকে গ্রেট ব্যাটসম্যান বলে মানেন সবাই, কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটে তার সামগ্রিক অবদান সম্পর্কে একেকজনের একেক মত। আপনি কী বলেন?

রিচার্ডস: ওর যা অর্জন, তা থেকে আমি বলতে পারি, ও হলো একটা জিনিয়াস। ও যা করেছে, জিনিয়াস ছাড়া কারও পক্ষে তা করা সম্ভব নয়। তবে ওর বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় সমালোচনা যেটি করা যায়, তা হলো, লারা দলের সবাইকে এক সুতোয় বেঁধে ওই সাফল্য এনে দিতে পারেনি, যার জন্য আমরা সবাই তৃষ্ণার্ত হয়ে আছি। আপনি যদি কোনো দলের দায়িত্বে থাকেন, তাহলে ব্যাটসম্যান হিসেবে নিজের সাফল্যের সঙ্গে সঙ্গে সে দলেরও সাফল্য দেখতে চাইবেন। লারাকে নিয়ে এই মুহূর্তে সবচেয়ে বড় হতাশা এটাই। তবে এ কারণে এটা ভুলে যাওয়া ঠিক হবে না যে, লারা এক জিনিয়াস এবং জিনিয়াসরা সব সময় আসে না।

শুভ্র: আপনি যা বললেন, তারপরও কি ব্রায়ান লারাই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত লোক?

রিচার্ডস: এই মুহূর্তে আর কারও মধ্যে তো সেই কমিটমেন্ট দেখতে পাচ্ছি না। আমি বলব না যে, লারাই সবচেয়ে উপযুক্ত, তবে এই মুহূর্তে আমাদের হাতে আর কোনো বিকল্প নেই। লারা অধিনায়ক, কারণ সে-ই এখন ওয়েস্ট ইন্ডিজের সবচেয়ে প্রভাবশালী খেলোয়াড়।

"আমি বিশ্বাস করি, আরও কিছু তরুণকে তুলে আনার সুযোগ ছিল লারার। যারা গ্রেট, তারা এটাই করে। অসাধারণরা তাদের চারপাশের সাধারণদেরও বিকশিত হতে সাহায্য করে। "

শুভ্র: ক্রিকেট ইতিহাসের সব বড় ব্যাটসম্যানই সফল দলে খেলেছেন। আপনার সময়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে আরও বড় খেলোয়াড় ছিল, স্যার ডন ব্র্যাডম্যানের অস্ট্রেলিয়া দলেও তা-ই। ব্রায়ান লারার ঘটনা অন্যরকম। তাঁর ওপর চাপটা অনেক বেশি। আপনার কি মনে হয়, শক্তিশালী একটা দলে খেললে লারা আরও সফল হতেন?

রিচার্ডস: আমার তাতে ঘোরতর সংশয় আছে। আমার কথা হলো, আপনি যে সময়েই খেলেন, সে সময়ের আলোকেই আপনাকে দেখা হবে। সেই সময় অনুযায়ীই কাজ করতে হবে... পেছনে কী হয়েছে তা নিয়ে ভেবে লাভ নেই। আপনাকে দায়িত্ব দেওয়ার অর্থ তা পালন করতে হবে। আপনি স্যার ফ্র্যাঙ্ক ওরেলের কথাই ধরুন, তিনি কী করেছিলেন? খেলোয়াড়দের সবার সেরা খেলাটা বের করে এনে একটা সফল দল হিসেবে গড়ে তুলেছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। বড় অধিনায়কেরা তা-ই করে। কোন সময়ে খেলতে হচ্ছে, তা নিয়ে আক্ষেপ না করে ব্রায়ান লারারও উচিত তা-ই করা। আমি বিশ্বাস করি, আরও কিছু তরুণকে তুলে আনার সুযোগ ছিল লারার। যারা গ্রেট, তারা এটাই করে। অসাধারণরা তাদের চারপাশের সাধারণদেরও বিকশিত হতে সাহায্য করে। 

শুভ্র: ভিভ রিচার্ডসরা প্রতি যুগে জন্মায় না। তারপরও ওয়েস্ট ইন্ডিজের তরুণ প্রজন্মের মধ্যে এমন কোনো ব্যাটসম্যান কি আছে, যে ভিভ রিচার্ডসের কথা মনে করিয়ে দেয়?

রিচার্ডস: বেশ কয়েকজন সম্পর্কেই এমন বলা হয়েছে, ইদানীং লোকজন ডোয়াইন স্মিথ সম্পর্কেও এমন বলছে। কিন্তু কেউ একজন আমাকে মনে করিয়ে দেয়, এ কথা আপনি কত দিন বলে যাবেন? আমরা কিছু অর্জন দেখতে চাই, সে জন্যই তো তাকে খেলিয়ে যাচ্ছি আমরা। নির্বাচকমণ্ডলীর চেয়ারম্যান হিসেবে আমি বলব, একটা পর্যায় পর্যন্ত আপনি প্রতিভাকে লালন করে যাবেন, কিন্তু তারও একটা সীমা আছে। একটা সময় আপনি পারফরম্যান্স চাইবেন।

ডোয়াইন স্মিথের মতো অনেকেই তাঁর নিজের কথা মনে করিয়ে দিয়েছেন রিচার্ডসকে, কিন্তু তাঁদের কেউই রিচার্ডসের ধারে কাছেও যেতে পারেননি। ছবি: আইসিসি

শুভ্র: বাংলাদেশ দলকে তো খুব কাছে থেকে দেখলেন। কী মনে হলো?

রিচার্ডস: বাংলাদেশ উন্নতি করেছে। ১০০ ভাগ বলব না, ৭৫ ভাগ, তবে সেটাই তো পাস মার্ক, নাকি? মাঠে ওদের (বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের) অনেক বেশি ফিট মনে হয়, মনে হয় অনেক বেশি নিবেদিত। নিজেদের ওপর ওদের যে বিশ্বাসটা পরিষ্কার চোখে পড়ে, বোঝা যায়, তা অনেক দিনের সংঘবদ্ধ প্রচেষ্টার ফল। বাংলাদেশ এগোচ্ছে, তবে সময় লাগবে। এসব জিনিস রাতারাতি হয় না। আমরাও এখন অনেকটা একই অবস্থায়। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে আবারও ভালো একটা দলে পরিণত করার জন্য আমাদেরকেও হাজারো সমস্যার সমাধান খুঁজতে হচ্ছে।

শুভ্র: ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাম্প্রতিক ব্যর্থতা দেখে অনেক সমর্থকই আক্ষেপ করে বলেন, এখনো ভিভ রিচার্ডস নামলে এই দলের অনেকের চেয়ে ভালো করবে। আপনার কি কখনো এমন মনে হয়?

রিচার্ডস: আমাকেও অনেকে এমন বলে, আমি তাদেরকে বলি, ‘ঠিক আছে, আমি ভেবে দেখব।’ এ ধরনের কথা শুনতে ভালোই লাগে। তবে ভাবতে যতই ভালো লাগুক, তা করাটা সহজ নয়।