ব্যাটসম্যান টেন্ডুলকার, বোলার হ্যাডলি-ওয়াসিম আকরাম

অরবিন্দ ডি সিলভার চোখে সেরা

উৎপল শুভ্র

৬ মে ২০২১

ব্যাটসম্যান টেন্ডুলকার, বোলার হ্যাডলি-ওয়াসিম আকরাম

অরবিন্দ ডি সিলভা

ব্যাট হাতে অরবিন্দ ডি সিলভার সঙ্গে মাঠের বাইরের ডি সিলভাকে আপনি মেলাতেই পারবেন না। কথা বলেন খুব অনুচ্চ স্বরে, সেসবও আবার খুবই নিরীহ ধরনের কথাবার্তা। তাঁর ব্যাটিং যতই মনোরঞ্জক হোক, ইন্টারভিউ করার জন্য ডি সিলভা রীতিমতো দুঃস্বপ্ন। তারপরও ১৯৯৯ সালে ঢাকায় এশিয়ান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনাল শেষ হওয়ার পর শ্রীলঙ্কান ড্রেসিংরুমে তাঁর যে ইন্টারভিউ করেছিলাম, তার কারণ তিনি অরবিন্দ ডি সিলভা--সেই সময়ে বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যানদের একজন।

প্রথম প্রকাশ: মার্চ ১৯৯৯। প্রথম আলো।

উৎপল শুভ্র:  অর্জুনা রানাতুঙ্গা না থাকায় হঠাৎ করেই আবার অধিনায়কত্ব করে ফেললেন শ্রীলঙ্কার। কিন্তু তা তো মোটেই স্মরণীয় কিছু হলো না (ইনিংস ও ১৭৫ রানে হেরেছিল শ্রীলঙ্কা)।

অরবিন্দ ডি সিলভা: তা হয়নি, প্রথমে ব্যাট করে আমরা বড় রান তুলতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আমরা মোটেও ভালো ব্যাট করতে পারিনি। পারিনি বলেই…। তবে একটা অভিজ্ঞতা তো হলোই।

শুভ্র: শ্রীলঙ্কা দলের সবচেয়ে সিনিয়র সদস্যদের মধ্যে একজন আপনি। এই পারফরম্যান্সের পর আপনি কি একটু উদ্বিগ্ন? কারণ এই টেস্টে অনেক পুরোনো দিনের শ্রীলঙ্কার মতো মনে হয়েছে আপনাদের।

ডি সিলভা: না, উদ্বিগ্ন হবো কেন? আমাদের একটি ‘ব্যাড গেম’ গেছে এখানে। এ নিয়ে বেশি হতাশ হওয়ার কিছু নেই।

শুভ্র: কিন্তু এই পারফরম্যান্স কি রানাতুঙ্গা, জয়াসুরিয়া, মুরালির (নানা কারণে এই তিনজন ছিলেন না ফাইনালে) মতো খেলোয়াড়দের উপযুক্ত রিপ্লেসমেন্ট নেই--এটাই স্পষ্ট করে তোলে না?

ডি সিলভা: হ্যাঁ, আমরা ওদের রিপ্লেসমেন্ট খুঁজে পাওয়ার চেষ্টা করেছি। তা পাওয়ার একমাত্র উপায় হলো নতুনদের যথেষ্ট এক্সপোজার দেয়া। তা না দিলে ওরা কীভাবে বেরিয়ে আসবে? আমি আত্মবিশ্বাসী, যথেষ্ট সুযোগ পেলে ওরা তা পারবে।

অরবিন্দ ডি সিলভার এই ছবিটা ঢাকায় এশিয়ান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালে শ্রীলঙ্কার পারফরম্যান্সের প্রতীকি রূপ

শুভ্র: এবার আপনার নিজের ক্যারিয়ারে আসি। গত তিন বছর তো বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যানদের একজন হিসেবে স্বীকৃতি পেয়ে গেছেন। আপনি নিজে কীভাবে মূল্যায়ন করেন আপনার ক্যারিয়ার?

ডি সিলভা: ওয়েল, ওসব তো আমার মতামত নয়। আমার কথা যদি বলেন, আমি ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স না দেখে আরও দলীয় পারফরম্যান্স দেখতে চাই।

শুভ্র: কিন্তু ব্যক্তিগত চিন্তাও তো কখনো কখনো মাথায় আসার কথা। এই যেমন লোকজন যখন শচীন টেন্ডুলকার, ব্রায়ান লারা, এমনকি মার্ক ওয়াহকে পর্যন্ত বিশ্বের এক নম্বর বলে ঘোষণা করে দেন, তখন মাঝখানে সেঞ্চুরির পর সেঞ্চুরির করে যাওয়া অরবিন্দ ডি সিলভার খারাপ লাগে না?

ডি সিলভা: এ নিয়ে আমি একটুও চিন্তিত নই। সত্যি বলছি, এটা আমকে ভাবায়ই না। দল যদি ভালো করে, এসবে কিছুই আসে যায় না আমার।

শুভ্র: ১৯৯৬-এর বিশ্বকাপকেই বলতে হবে আপনার ক্যারিয়ারের টার্নিং পয়েন্ট। এর আগে আপনি বড় বেশি ঝুঁকি নিতেন, যে কারণে আপনার নামই তো হয়ে গিয়েছিল 'ম্যাড ম্যাক্স'; কিন্তু সেই বিশ্বকাপ থেকেই দেখা গেল একটা পরিবর্তন। অনেক বেশি দায়িত্বশীলতার ছাপ আপনার ব্যাটিংয়ে।

ডি সিলভা: আমি বলব, আর যেকোনো কিছুর চেয়ে দলের পারফরম্যান্সটাই বেশি ভূমিকা রেখেছে এতে। আমাদের টিম পারফরম্যান্স খুব ভালো। সেটিই শুধু আমাকে না, দলের সবাইকেই বদলে দিয়েছে।

শুভ্র: আপনার ব্যাটিং স্টাইলে একটা পরিবর্তন তো এসেছেই, আগে আপনি আরও বেশি আক্রমণাত্মক ছিলেন...

ডি সিলভা: না, আমি আগের মতো একইভাবে ব্যাট করি। তবে আপনি অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়েই শিখবেন--এমন কিছু পরিবর্তন তো এসেছেই।

শুভ্র: আপনার দৃষ্টিতে এখন পর্যন্ত আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আপনার সেরা ইনিংস কোনটি?

ডি সিলভা: আমি মনে করি, ১৯৯৬ বিশ্বকাপ ফাইনালের ইনিংসটিই সেরা।

১৯৯৬ বিশ্বকাপ ফাইনালের সেঞ্চুরিটাকেই তখন পর্যন্ত ক্যারিয়ারের সেরা ইনিংস বলে মানতেন অরবিন্দ ডি সিলভা

শুভ্র: ওটা তো ওয়ানডেতে, টেস্ট-ওয়ানডে মিলিয়েই কি এটা সেরা, নাকি টেস্টে সেরা অন্য কোনো ইনিংস?

ডি সিলভা: টেস্টে সেরা ১৯৮৫ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে দুইটা হান্ড্রেড (পাকিস্তান সফরে তিন টেস্টে দুটি সেঞ্চুরি করেছিলেন ডি সিলভা, টেস্ট ক্রিকেটে যা তাঁর প্রথম দুই সেঞ্চুরিও)।

শুভ্র: আরেকটি বিশ্বকাপ (১৯৯৯) তো একেবারে দুয়ারে। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন হিসেবে শ্রীলঙ্কার প্রথম বিশ্বকাপ। পারবেন শিরোপা ধরে রাখতে?

ডি সিলভা: আমরা ভালো করার ব্যাপারে আশাবাদী। আমাদের প্রথম লক্ষ্য হবে, দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠা, এরপর এটিকে অন্য যেকোনো টুর্নামেন্টের মতোই নেব আমরা, খেলব সেভাবেই।

শুভ্র: শ্রীলঙ্কার কথা তো বলবেন জানিই, এর বাইরে আগামী বিশ্বকাপে আপনার চোখে ফেবারিট কোন দল?

ডি সিলভা: ওয়ানডে টুর্নামেন্টে কোনো দলকে ফেবারিট বলা খুব কঠিন। কারণ এটি নির্ভর করে টুর্নামেন্টের সময়ে কোন দল পিকে পৌঁছুবে তার ওপর। তাই ভবিষ্যদ্বাণী না করে অপেক্ষা করাই ভালো। দেখা যাক, কোন দল কতটা সামলাতে পারে এই চাপ।

শুভ্র: আবারও দীর্ঘমেয়াদে ক্যাপ্টেনসি ফিরে পাওয়ার স্বপ্ন দেখেন?

ডি সিলভা: না, আমি এমনকি এ নিয়ে ভাবিও না।

শুভ্র: সেটি কি এ কারণে যে, আপনি বাড়তি দায়িত্ব ছাড়া এমনিতেই খেলতে পছন্দ করেন?

ডি সিলভা: নট রিয়েলি। অর্জুনা তো এখনো যথেষ্টই ভালো করছে। আমি তাই এ নিয়ে ভাবিইনি।

শুভ্র: শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটে অর্জুনা রানাতুঙ্গার অবদানকে আপনি কীভাবে দেখেন?

ডি সিলভা: প্রথমেই বলতে হবে, দল হিসেবে আমরা খুব ভালো করেছি। আমি মনে করি, দলে যথেষ্ট প্রতিভা না থাকলে একজন অধিনায়কের কিছুই করার থাকে না। আবার যে সময় আপনার হাতে ভালো দল থাকবে, অধিনায়কের কাজ তখন খু্ব সহজ।

শুভ্র: আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সবচেয়ে সিনিয়র খেলোয়াড়ের একজন আপনি। বর্তমান ক্রিকেটের কোন দিকটি নিয়ে সবচেয়ে বেশি আপত্তি?

ডি সিলভা: বড় বেশি খেলা হচ্ছে এখন। বিশ্রাম নেওয়া বা ফ্যামিলির সঙ্গে থাকার মতো সময় বলতে গেলে পাই-ই না আমরা। এটা একটা সমস্যা তো বটেই।

লারা-টেন্ডুলকার তর্কের ওই সময়ে ডি সিলভার চোখে সেরা ছিল শচীন টেন্ডুলকারই

শুভ্র: কখনও কখনও কি এতে ক্রিকেটেই বিরক্তি এসে যায় আপনার?

ডি সিলভা: না, ক্রিকেটে বিরক্তির প্রশ্ন নয়। কিন্তু এটা তো মানুষের শরীর, একটা নির্দিষ্ট পর্যায়ের পর তো তা আর টানতে পারে না। কখনও কখনও আমরা সে পর্যায়ে পৌছে যাই।

শুভ্র: শ্রীলঙ্কার সাম্প্রতিক বাজে পারফরম্যান্সের কারণ কী এটাই?

ডি সিলভা: হতে পারে। হ্যাঁ, হতে পারে।

শুভ্র: আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এখন যে বোলাররা আছেন, আপনার দৃষ্টিতে সেরার স্বীকৃতি পাবেন কে?

ডি সিলভা: ওয়াসিম আকরাম।

শুভ্র: আপনি যাঁদের খেলেছেন, তাঁদের মধ্যে কী সে-ই সেরা?

ডি সিলভা: তাহলে রিচার্ড হ্যাডলির নামও বলতে হবে।

শুভ্র: সেরা ব্যাটসম্যানের ব্যাপারে আপনার রায় কী?

ডি সিলভা: (এই প্রথম মুখে একটা হাসি ফুটিয়ে পেছনে শ্রীলঙ্কান ট্রেনারের দিকে চোখ টিপে) অ্যালেক্স কনটৌরি।

শুভ্র: কনটৌরির ব্যাটিং তো আমি দেখিনি, আমার পত্রিকার পাঠকও না। যাঁদের দেখেছি, তাঁদের মধ্যে কারও নাম বললে সবারই সুবিধা হয়। 

ডি সিলভা: (এবার সিরিয়াস মুখে) শচীন টেন্ডুলকার।

শুভ্র: টেন্ডুলকারের ব্যাটসম্যানশিপ থেকে কোনো একটি ব্যাপার যদি বেছে নেয়ার সুযোগ পান, কী নেবেন আপনি?

ডি সিলভা: ওর ব্যাটিংয়ের আক্রমণাত্মক মেজাজ।

আরও পড়ুন: 
লাহোর ফাইনালে অরবিন্দ ডি সিলভার সেই অমর ইনিংস
এই বিশ্বকাপেই শেষ দেখছেন অরবিন্দ ডি সিলভাকে

শেয়ার করুনঃ
আপনার মন্তব্য
আরও পড়ুন
Add
Ispahani Mirzapore Tea
×