আজ দেখা দিচ্ছেন মহানায়ক

২০১২ লন্ডন অলিম্পিক

উৎপল শুভ্র

২১ জুলাই ২০২১

আজ দেখা দিচ্ছেন মহানায়ক

মাইকেল ফেলপস সর্বকালের সেরা অলিম্পিয়ানের স্বীকৃতি পেয়ে যেতে পারেন, কিন্তু এই অলিম্পিকের সবচেয়ে বিখ্যাত অ্যাথলেট তিনি নন। অন্য খেলার বড় বড় সব তারকা এই অলিম্পিকে এসে একটা ইচ্ছার কথাই জানাচ্ছেন বারবার—ওর সঙ্গে একটা ছবি তুলতে চাই। এই `ও`টা হচ্ছেন উসাইন বোল্ট।

প্রথম প্রকাশ: ৪ আগস্ট ২০১২। প্রথম আলো

অলিম্পিক কি গতকাল শুরু হলো, না শুরু হচ্ছে আজ?

হেঁয়ালি মনে হচ্ছে? সেই ২৭ জুলাই উদ্বোধন হয়ে গেছে। খেলা শুরু হয়ে গেছে আরও আগে থেকেই। এক সপ্তাহ পেরিয়ে যাওয়ার পর এখন বলা হচ্ছে, এত দিনে অলিম্পিক শুরু! কারণ একটাই—অ্যাথলেটিকস শুরু না হলে অলিম্পিক আসলে শুরু হয় না!

কথাটা প্রতীকী। অ্যাথলেটিকসই অলিম্পিকের প্রাণভোমরা—এটা বোঝাতে। অলিম্পিকে সবচেয়ে বেশি পদকও অ্যাথলেটিকসে। এরপরই সাঁতার। সাঁতারকে প্রথম সপ্তাহটা দিয়ে অ্যাথলেটিকস সবাইকে দ্বিতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত অপেক্ষায় রাখে। সেই অপেক্ষার শেষ হয়েছে গতকাল।

কিন্তু এই ‘কাল শুরু হয়েছে না আজ শুরু’র হেঁয়ালিটা কেন? অবশ্যই কারণ আছে। অ্যাথলেটিকস কাল শুরু হয়েছে বটে, কিন্তু লন্ডন অলিম্পিকের ‘পোস্টার বয়’ যে প্রথম দেখা দিচ্ছেন আজ! 

মাইকেল ফেলপস সর্বকালের সেরা অলিম্পিয়ানের স্বীকৃতি পেয়ে যেতে পারেন, কিন্তু এই অলিম্পিকের সবচেয়ে বিখ্যাত অ্যাথলেট তিনি নন। অন্য খেলার বড় বড় সব তারকা এই অলিম্পিকে এসে একটা ইচ্ছার কথাই জানাচ্ছেন বারবার—ওর সঙ্গে একটা ছবি তুলতে চাই।

এই ‘ও’টা কে, তা আপনার বুঝে ফেলার কথা। সব খেলার সীমানা ছাড়িয়ে এই মর্ত্যধামেই এখন সবচেয়ে বিখ্যাত অ্যাথলেটের নাম উসাইন বোল্ট। সেই বোল্টের আজ এই অলিম্পিকে প্রথম আবির্ভাব। একজন অ্যাথলেটের জন্য এমন অধীর অপেক্ষার তুল্য কিছু অলিম্পিক ইতিহাসে নিশ্চয়ই খুব বেশি হয়নি।

স্মরণকালের মধ্যে সবচেয়ে প্রতীক্ষিত ১০০ মিটার স্প্রিন্ট ফাইনাল আগামীকাল রাত ৯টা ৫০ মিনিটে। এর আগেই বোল্টকে কমপক্ষে দুবার দেখা হয়ে যাবে দর্শকদের। আজ হিটে, আগামীকাল ফাইনাল শুরুর ঘণ্টা দুয়েক আগে সেমিফাইনালে। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ছিলেন। মার্চ পাস্টে জ্যামাইকার পতাকাও ছিল তাঁর হাতে। এরপর থেকে আর বোল্টের কোনো খোঁজখবর নেই। অলিম্পিক ভিলেজেই আছেন। তবে সংবাদমাধ্যমকে এড়িয়ে চলছেন সযত্নে। ট্রেনিং পার্টনার ও মূল প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আবির্ভূত ইয়োহান ব্লেক সংবাদ সম্মেলন করেছেন। সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন টাইসন গে ও ২০০৪ অলিম্পিকে ১০০ মিটারে সোনাজয়ী জাস্টিন গ্যাটলিনের কথাবার্তাও পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে। শুধু বোল্টই নীরব!

বেইজিংয়ে ১০০ মিটার জিতেছিলেন বিশ্ব রেকর্ড গড়ে, সময় ছিল ৯.৬৯ সেকেন্ড। ওই একটা দৌড়েই পরিণত হয়েছিলেন মহাতারকায়। কদিন পর বার্লিন বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে দ্রুততম মানব হলেন বিশ্ব রেকর্ডকে ৯.৫৮ সেকেন্ডে নামিয়ে এনে। হেলাফেলায় বিশ্ব রেকর্ড গড়েছেন, মহাতারকা হওয়ার কারণ শুধু এটিই ছিল না। তাঁর আমুদে চরিত্র, সবকিছু নিয়ে মজা করা, অলিম্পিকের মতো আসরেও দৌড় শুরুর আগে দর্শকদের সঙ্গে দুষ্টুমি, কাল্পনিক তির ছোঁড়ার সেই ভঙ্গি—সবকিছু মিলিয়ে এমন আকর্ষক একটা প্যাকেজ যে পুরো বিশ্বই বোল্টকে ভালো না বেসে পারেনি। 

বজ্রপাত নাকি এক জায়গায় একবারই হয়, বেইজিংয়ে হয়েছিল তিনবার। ১০০ মিটারের পর ২০০ মিটার ও ৪ গুণন ১০০ মিটার রিলেতেও সোনা। বিশ্ব রেকর্ড ভাঙাটা তো পরিণত হয়েছিল নিয়মেই। এরপর থেকে প্রায় অজেয়ই ছিলেন। ইয়োহান ব্লেক দেখা দেওয়ার আগ পর্যন্ত।

বার্মিংহামে অলিম্পিকের প্রস্তুতিতে। ছবি: গেটি ইমেজেস

এমনিতেই সবাই বোল্টের জন্য অধীর অপেক্ষায় ছিলেন। জ্যামাইকান ট্রায়ালে বোল্টকে হারিয়ে সেই প্রতীক্ষায় আরও রোমাঞ্চ যোগ করে দিয়েছেন ইয়োহান ব্লেক। তাঁর ভূমিকাটা ওটুকুই থাকবে, নাকি বোল্টের সিংহাসন কেড়ে নিতেই তাঁর আবির্ভাব—এ প্রশ্নের উত্তর মিলবে আগামীকাল।

বেইজিং অলিম্পিকের প্রথম সপ্তাহটা ছিল মাইকেল ফেল্পেসর। দ্বিতীয় সপ্তাহে বোল্ট ভাগ বসালেন লাইমলাইটে। দুটি হারেই যাঁরা বোল্টের শেষ দেখে ফেলছেন, তাঁদের জন্য একটা শিক্ষা কিন্তু এরই মধ্যে দিয়েছেন ফেলপস। আগের সেই সাঁতারু তিনি আর নেই, এটা তো প্রশ্নাতীত। কিন্তু চ্যাম্পিয়নদের সম্পর্কে যে শেষ কথা বলে ফেলতে নেই, সেটি মনে করিয়ে দেওয়ার মতো সামর্থ্য তো এখনো অবশিষ্ট আছে।  

সাঁতারের প্রথম দিনে ৪০০ মিটার ব্যক্তিগত মিডলেতে রায়ান লোকটির কাছে হেরে যাওয়ার পরই ফেলপসের শেষ দেখে ফেলেছিলেন অনেকে। অনেক পত্রিকাতেই লোকটির বিশাল ছবি দিয়ে পাশে শিরোনাম হয়েছে—পুলের নতুন রাজা। গত পরশু ২০০ মিটার মিডলেতে সেই লোকটিকে ঠিকই হারিয়ে দিলেন ফেলপস। হারিয়ে জিতলেন অলিম্পিকে তাঁর ১৬ নম্বর সোনা। সব মিলিয়ে ২০তম পদক।

সমস্যাটা আসলে ফেলপসরাই করেন। বেইজিংয়ের ওই অত্যাশ্চর্য কীর্তির পর যা-ই করেন, সেটিই তো কম মনে হতে বাধ্য। উসাইন বোল্টের ঘটনাও তো এমনই। শুধু সোনা জিতলেই হবে না, সেই সোনা জয়ে বেইজিংয়ের মতো রোমাঞ্চকর কিছু না থাকলে সেটি বিবেচিত হবে ‘ব্যর্থতা’ বলে।

এই অলিম্পিক এখন ‘বোল্ট-মুহূর্ত’ দেখার অপেক্ষায়। আজ সেই অপেক্ষার শেষ। লন্ডন অলিম্পিকের আসল শুরুও।

শেয়ার করুনঃ
আপনার মন্তব্য
আরও পড়ুন
Add
Ispahani Mirzapore Tea
×