বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড টি-টোয়েন্টি সিরিজ

আজই কি সেই জয়, মাহমুদউল্লাহ?

উৎপলশুভ্রডটকম

১ সেপ্টেম্বর ২০২১

আজই কি সেই জয়, মাহমুদউল্লাহ?

রেকর্ডের হাতছানি মাহমুদউল্লাহর সামনে। ছবি: এএফপি

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয় দিয়েই সিরিজ শুরু করতে চাইবে বাংলাদেশ। আজ বাড়তি করে জয় পেতে চাইবে অধিনায়কের জন্যেও। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সামনে যে রেকর্ড গড়ার হাতছানি!

নেতৃত্বের ব্যাটনটা পাকাপাকিভাবে যখন হাতে এল তাঁর, বাংলাদেশের ক্রিকেট তখন ঘোর অমানিশায়। বাংলাদেশ দল ভারত সফরের বিমানে চড়বে দিনদুয়েকের মাঝেই, কিন্তু আচমকা এক ঝড় শেষে বাংলাদেশ জানল, ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব গোপন করে সাকিব আল হাসান নিষিদ্ধ হয়েছেন এক বছরের জন্য। যে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাট দিয়ে শুরু ভারত সফর, সাকিব তখন ওই দলের নিয়মিত অধিনায়কও। তড়িঘড়ি করে তলব পড়ল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের। অধিনায়ক হতে হবে!

অমন বিনা নোটিশে নেতৃত্বের বোঝা কাঁধে চাপলেও মাহমুদউল্লাহ সামলে নিতে সময় নেননি একদমই। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে ভারত বাংলাদেশের কাছে অজেয়ই ছিল এর আগ পর্যন্ত। বারকয়েক তীরে এসেও তরী ভেড়ানো যায়নি আর, কোনো এক দুর্বোধ্য কারণে ফিরে যেতে হচ্ছিল দরজায় টোকা ফেলেই। তবে ওই ঝঞ্ঝা-বিক্ষুদ্ধ সময়টায় আর ফিরতে হয়নি। দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে পাওয়া ৭ উইকেটের জয়টা সিরিজের সীমানা ছাড়িয়ে তো ঢুকে গেছে বাংলাদেশের ক্রিকেট রূপকথাতেই।

স্থায়ীভাবে অধিনায়কত্ব পাওয়ার পর মাহমুদউল্লাহর নেতৃত্বে বাংলাদেশ খেলেছে আরও ১৬ ম্যাচ, তাতে জয় এসেছে ৯ ম্যাচে। জাতীয় দলের অধিনায়কের চেয়ারে অবশ্য এর আগেই বসেছেন তিনি। এবং সেবারও সাকিবের কারণেই। ২০১৮ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে প্রথম যেবার নেতৃত্ব দিয়েছিলেন জাতীয় দলকে, তার পেছনে ছিল সাকিবের আঙুলের চোট। ওই চোটের কারণে বাংলাদেশ সাকিবকে পায়নি শ্রীলঙ্কার নিদাহাস ট্রফিতে, বিসিবি সেবারও ঠাঁই খুঁজেছিল মাহমুদউল্লাহর অধিনায়কত্বে। ইসুরু উদানার বলে ফাইন লেগ দিয়ে ছক্কা মেরে বাংলাদেশকে ফাইনালে তোলার ছবিটাই হয়তো মনে গেঁথে আছে সবার, তবে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে এর আগের ম্যাচেই রেকর্ড রান তাড়া করে বাংলাদেশকে ফাইনালে তোলার প্রাথমিক কাজটা তিনি সেড়েছিলেন ক্যাপ্টেনসি দিয়েই।সিরিজ শুরুর আগে শেষ মুহূর্তের শলাপরামর্শ কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর সঙ্গে। ছবি: বিসিবি

সব মিলিয়ে টি-টোয়েন্টি সংস্করণে মাহমুদউল্লাহ বাংলাদেশকে জয় পাইয়ে দিয়েছেন ১০ ম্যাচে। যা তাঁকে বসিয়ে দিয়েছে মাশরাফি বিন মুর্তজার পাশের সিটটায়। ১০ জয় নিয়ে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের সফলতম অধিনায়ক এখন তাঁরা দুজনই। ১০ জয় পেতে মাশরাফির যেখানে খেলতে হয়েছিল ২৮ ম্যাচ, মাহমুদউল্লাহ তা পেয়ে গেছেন ২২ ম্যাচেই।

আজ জয় পেয়ে এককভাবে সবার ওপরে চড়ে বসার সুযোগ মাহমুদউল্লাহর সামনে। যে রেকর্ডটা তাঁকে গর্বিত হবেন নিশ্চিত, কিন্তু একটু বিব্রতও কি করবে না? বাংলাদেশের সীমানাটা তুলে দিলে এটা কোনো রেকর্ড তো নয়ই, সঙ্গে বুঝিয়ে যায় এই ফরম্যাটের ক্রিকেটে বাংলাদেশের দৈন্যদশাও। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে অধিনায়ক হিসেবে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ম্যাচে জয় পেয়েছেন আফগানিস্তানের আজগর আফগান, ৫২ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়ে জিতেছেন ৪২ ম্যাচেই, শতাংশের হিসাবে সংখ্যাটা ৮১.৭৩। তাঁর পরই আছেন ভারতের মহেন্দ্র সিং ধোনি, আজগরের চেয়ে ২০ ম্যাচ বেশি খেললেও জয় পেয়েছেন একটা কম। তবে ওই সংখ্যাটাও আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের জেতা ম্যাচের চেয়ে চারটা বেশি!

ধোনিকে ছাড়ানোর সুযোগ আছে এই সিরিজেই।  মাহমুদউল্লাহ তাই সিরিজের সব ম্যাচে জয় পেতে চাইবেন নিশ্চিত করেই। তবে তার চেয়েও বেশি করে চাইবেন এই ফরম্যাটের সুরটা রপ্ত করতে। সামনেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, রেকর্ডের চেয়ে সুর রপ্ত করাই তো বেশি জরুরি এখন।

শেয়ার করুনঃ
আপনার মন্তব্য
আরও পড়ুন