অ্যালম-পেথেরিক-ফ্লেমিং

টেস্ট অভিষেকেই হ্যাটট্রিকের ওঁরা তিনজন

উৎপল শুভ্র

২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

টেস্ট অভিষেকেই হ্যাটট্রিকের ওঁরা তিনজন

টেস্ট অভিষেককে হ্যাটট্রিকে রঙিন করে তুলতে পেরেছেন মাত্র যে তিনজন বোলার, তাঁদের কারও ক্যারিয়ারই বলার মতো কিছু হয়নি। মরিস অ্যালম, পিটার পেথেরিক ও ডেমিয়েন ফ্লেমিংয়ের মধ্যে একমাত্র ফ্লেমিংই পেরেছেন টেস্ট সংখ্যাকে দুই অঙ্কে নিয়ে যেতে। ২০ টেস্টে ৭৫ উইকেটকে ভালোই বলতে হয়, কিন্তু হ্যাটট্রিক দিয়ে শুরুর কথা মনে রাখলে?

একজন বোলার টেস্ট অভিষেকে প্রথম বলেই উইকেট নেওয়ার স্বপ্ন দেখতে পারেন। দেখতে পারেন ৫ উইকেট-১০ উইকেট, এমনকি ম্যাসি-হিরওয়ানির মতো ১৬ উইকেট নেওয়ার স্বপ্নও। কিন্তু হ্যাটট্রিক করে ফেলার স্বপ্ন কেউ দেখেন বলে মনে হয় না। হ্যাটট্রিক তো বলে-কয়ে করার জিনিস নয়, ওটা হয়ে যায়। 

টেস্ট অভিষেককে হ্যাটট্রিকে রঙিন করে তুলতে পেরেছেন মাত্র যে তিনজন বোলার, তাঁদের কারও ক্যারিয়ারও বলার মতো কিছু হয়নি। মরিস অ্যালম, পিটার পেথেরিক ও ডেমিয়েন ফ্লেমিংয়ের মধ্যে একমাত্র ফ্লেমিংই পেরেছেন টেস্ট সংখ্যাকে দুই অঙ্কে নিয়ে যেতে। ২০ টেস্টে ৭৫ উইকেটকে ভালোই বলতে হয়, কিন্তু হ্যাটট্রিক দিয়ে শুরুর কথা মনে রাখলে? তখন কি মনে হয় না আরও বেশি কিছু হওয়া উচিত ছিল! হয়নি, কারণ দারুণ এই সুইং বোলারকে এক সময় টেস্টের চেয়ে ওয়ানডেতেই বেশি কার্যকরী বলে ভাবতে শুরু করেন অস্ট্রেলিয়ান নির্বাচকেরা। ৮৮টি ওয়ানডেতে ১৩৪ উইকেটে সেটির প্রমাণও আছে।

টেস্ট অভিষেকেই হ্যাটট্রিকের আনন্দে মাতোয়ারা ডেমিয়েন ফ্লেমিং। এই কীর্তিতে সর্বশেষ বোলার। ছবি: আইসিসি

এই পরিসংখ্যান থেকে অবশ্য ওয়ানডে বোলার হিসাবে ফ্লেমিংয়ের আসল বিশেষত্ত্বটাই জানার উপায় নেই। জানার উপায় নেই যে, তিনি ছিলেন 'শেষ ওভারের জাদুকর'। স্নায়ুক্ষয়ী উত্তেজনা আর নার্ভাসনেস জয় করে অনেক ম্যাচ জিতিয়েছেন অস্ট্রেলিয়াকে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিখ্য্যাত ১‌৯৯৬ ও ১৯৯৯ পরপর দুই বিশ্বকাপের দুই সেমিফাইনাল।

ওয়ানডেতে অভিষেক হয়ে যাওয়ার প্রায় নয় মাস পর ১৯৯৪ সালের পাকিস্তান সফরে ফ্লেমিংয়ের টেস্ট অভিষেক। রাওয়ালপিন্ডি টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ওই হ্যাটট্রিক, যেটি ছিল দুই ওভারে বিস্তৃত। এক ওভারের শেষ দুই বলে আমির মালিক ও ইনজামাম-উল হক, পরের ওভারের প্রথম বলে সেলিম মালিক। সেলিম মালিক তাতে খুব বেশি মন খারাপ করেছিলেন বলে মনে হয় না। এর আগেই যে করে ফেলেছেন ২৩৭ রান।

ফ্লেমিং তা-ও ২০টি টেস্ট খেলেছেন, টেস্ট অভিষেকেই হ্যাটট্রিক করায় তাঁর দুই পূর্বসুরী মরিস অ্যালম ও পিটার পেথেরিকের ক্যারিয়ার তো ৫ আর ৬ টেস্টেই শেষ। মরিস অ্যালমের কীর্তিটা শুধু হ্যাটট্রিকেই সীমাবদ্ধ নয়। টেস্ট অভিষেকে হ্যাটট্রিকে যেমন তিনি প্রথম, তেমনি টেস্টে পাঁচ বলে চার উইকেট নেওয়ায়ও। এটাও তাঁর পরে মাত্র দুজনই করতে পেরেছেন---ক্রিস ওল্ড ও ওয়াসিম আকরাম।

মরিস অ্যালম: টেস্ট অভিষেকে হ্যাটট্রিকে প্রথম বোলারঅ্যালমের টেস্ট অভিষেক মিলে গিয়েছিল নিউজিল্যান্ডের প্রথম টেস্ট ম্যাচের সঙ্গে। ১৯৩০ সালের সেই ক্রাইস্টচার্চ টেস্ট আরেকটি কারণেও আলাদা। ইংল্যান্ড এখানে টেস্ট খেলছিল, একই সঙ্গে খেলছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজেও! তখন অবশ্য ইংল্যান্ড টেস্ট খেলত এমসিসি নামে। এমসিসি মানে মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাবের ওপরই ন্যস্ত ছিল টেস্ট ক্রিকেট দেখভালের ভার। তখন তো কোনো সফরে যাওয়া মানে প্লেনে উঠলাম আর নামলাম নয়। সমুদ্রপথে যেতে আসতেই সময় শেষ। চাইলেই বছরে দুটি ট্যুর করা যায় না। ওয়েস্ট ইন্ডিজে যেতেই হবে, আবার নিউজিল্যান্ডকে বরণ করে নিতে হবে টেস্ট পরিবারে। এই মহান দায়িত্ব পালন করতে এমসিসি তাই একই সঙ্গে দুটি দল নির্বাচন করে তুলনামূলক দুর্বল দলটিকে নিউজিল্যান্ডে পাঠিয়ে দেয়, অন্যটিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজে। নিউজিল্যান্ডের ১১ জনের সঙ্গে ইংল্যান্ডের ৬ জনেরও তাই ক্রাইস্টচার্চে অভিষেক। মরিস অ্যালমের হ্যাটট্রিকটি তাই আরেকটি দিক থেকেও অনন্য হয়ে আছে। হ্যাটট্রিক করা বোলারের মতো হ্যাটট্রিকের তিন শিকারও ডেবুট্যান্ট---এমন আর হয়নি কখনো।

সাড়ে ছয় ফুট উচ্চতার পেস বোলার অ্যালমের ৫ টেস্টের ৪টি নিউজিল্যান্ডের ওই সফরেই। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ডারবানে আরেকটি টেস্ট খেলে বছর না ঘুরতেই তাঁর ক্যারিয়ার শেষ। তবে ক্রিকেটের সঙ্গে তাঁর সংশ্রব শেষ হয়নি। এমসিসির সঙ্গে জড়িত ছিলেন দীর্ঘদিন। এক সময় প্রেসিডেন্টও হয়েছেন। ১৯৭০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে নিষিদ্ধ করা না-করা নিয়ে যখন ক্রিকেট বিশ্ব টালমাটাল, সেই সময়টায় মরিস অ্যালম এমসিসির প্রেসিডেন্ট। একই সঙ্গে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (পরে যেটি আইসিসি হয়েছে) চেয়ারম্যানও। যৌবনে একটা জ্যাজ দলে স্যাক্সোফোন বাজাতেন। কিন্তু তখন পরিস্থিতি এমন যে, স্যাক্সোফোনে আর ঠোঁট লাগাবেন কি, নিজের প্রাণই ওষ্ঠাগত!

অ্যালমের বছরখানেকের ক্যারিয়ারকেই পিটার পেথেরিকের তুলনায় দীর্ঘ বলতে হয়। এই অফ স্পিনারের তো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পাঁচ মাসও থাকা হয়নি। তাঁর টেস্ট খেলাটাই অবশ্য ঘটনাচক্রে। পেশায় ছিলেন মেকানিক, ক্রিকেটকেই ধ্যানজ্ঞান করেননি কখনোই। যে কারণে ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেটে অভিষেক ৩৩ বছর বয়সে। এক বছর পরই ডাক পেয়ে যান পাকিস্তান সফরের নিউজিল্যান্ড দলে। সেটিও ঘটনাচক্রে, প্রথম পছন্দের স্পিনার হেডলি হাওয়ার্থ সফরে যেতে পারছেন না বলে। ১৯৭৬ সালে যে লাহোর টেস্টে পেথেরিকের অভিষেক, তাতে পাকিস্তান দলেও এক তরুণের অভিষেক হয়েছিল। তাঁর নাম জাভেদ মিয়াঁদাদ। মিঁয়াদাদকে আউট করেই পেথেরিকের হ্যাটট্রিক-যাত্রা শুরু। এর আগেই অবশ্য মিয়াঁদাদ ১৬৩ রান করে ফেলেছেন। হ্যাটট্রিকের বাকি দুই শিকারও নামি অলরাউন্ডার--ওয়াসিম রাজা ও ইন্তিখাব আলম। প্রথম ইনিংসে ওই ৩টিই উইকেট। দ্বিতীয় ইনিংসে ২টি। সেই দু্ই ব্যাটসম্যানও বিখ্যাত নাম। জহির আব্বাস ও মুশতাক মোহাম্মদ।

পিটার পেথেরিক: টেস্ট ক্যারিয়ারে মনে রাখার মতো স্মৃতি বলতে শুধু অভিষেকে হ্যাটট্রিকই

পাকিস্তান আর ভারতে ৫টি টেস্ট খেলে দেশে ফেরার পর আর একটি টেস্টেই সুযোগ পেয়েছিলেন পেথেরিক। অকল্যান্ডে সেই টেস্টে মাত্র ৪ ওভার বোলিং করার সুযোগ পান। উইকেট নিশ্চয়ই খুব পেস সহায়ক ছিল, নইলে নিউজিল্যান্ডের তিন পেসার হ্যাডলি, চ্যাটফিল্ড আর ল্যান্স কেয়ার্নস মিলেই কেন অস্ট্রেলিয়ার প্রথম ইনিংসে ৯৭.১ ওভারের মধ্যে ৮৩.১ ওভার করে ফেলবেন! দ্বিতীয় ইনিংসে পেথেরিকের বোলিং করার প্রশ্নই ওঠেনি। মাত্র ৩.৫ ওভার ব্যাটিং করেই যে ২৮ রানের জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে গেছে অস্ট্রেলিয়া।

৬ টেস্টে ১৬ উইকেটেই তাই শেষ পিটার পেথেরিকের গল্প। তবে সেই গল্পের রেশ রয়ে গেছে এখনো। শুধু অভিষেক টেস্টটি খেলেই যদি থেমে যেতেন, তাতেও থাকত। ডেমিয়েন ফ্লেমিংয়ের তা-ও বলার মতো আরও দু'একটা গল্প আছে। মরিস অ্যালম ও পিটার পেথেরিকের তো অভিষেক টেস্টে ওই হ্যাটট্রিকটাই সম্বল। পরলোকে দুজনের দেখা হলে ঘুরেফিরে সেই গল্পই হয়তো করেন তাঁরা দুজন!

শেয়ার করুনঃ
আপনার মন্তব্য
আরও পড়ুন